Sale!

দুনিয়ার মোহভঙ্গ প্যাকেজ।

মানুষ মাত্রই বিনোদনপ্রিয়। স্বভাবে তার মিশে আছে আনন্দ ও উচ্ছ্বল-প্রবণতা। সে হাসতে চায়, খেলতে চায়, নানা ব্যস্ততার মাঝেও সময় পেলে একটু বিনোদন করতে চায়। বিনোদনেরও রয়েছে নানা প্রকার, যথা- আত্মিক বা দৈহিক, ব্যক্তিগত বা দলগত, মেধাভিত্তিক বা শক্তিভিত্তিক। সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে খেলা ও বিনোদনের বিভিন্ন পদ্ধতি। প্রযুক্তির কল্যাণে আবিস্কার হচ্ছে প্রতিদিন আনন্দ-উচ্ছ্বাসের নিত্যনতুন রীতিনীতি। বিনোদন ও আনন্দের এতসব উপকরণ দেখলে স্বভাবতই একজন মানুষের মন উতলা হয়ে ওঠে। ক্ষণিকের তরে আনন্দ-উল্লাসে নিজেকে ভাসিয়ে দিতে ইচ্ছে করে। বিশেষত যখন সমাজের চারপাশে শিশু থেকে বৃদ্ধ অধিকাংশ লোকই এসব খেলা-বিনোদনে মত্ত, তখন স্বভাবতই রক্ত-মাংসের একজন মানুষ হিসেব নিজেরও সেসব বিনোদনে অংশগ্রহণ করতে মন চায়। কিন্তু একজন মুমিন হিসেবে কি এ অবাধ বিনোদন আমার জন্য অনুমোদিত? একজন মুসলিম হিসেবে কি পাশ্চাত্যের আবিস্কৃত এসব খেলার উপকরণ আমার জন্য বৈধ? আল্লাহর একজন নগণ্য দাস হিসেবে এটা আমাকে ভাবতেই হবে। বস্তুত এখানেই একজন মুমিন ও কাফিরের মাঝে পার্থক্য নির্ণয় হয়ে যায়। কাফির দুনিয়ার কোনো কাজে কখনো কারও পরোয়া করে না।

৳ 603

দুনিয়ার মোহভঙ্গ প্যাকেজ।
#মুমিনের বিনোদন
#আমাদের সোনালি অতীত
#সালাফদের চোখে দুনিয়া
তিনটি বইয়ের বিক্রয় মূল্য ৬০৩৳
ডেলিভারি চার্জ: ৬০৳ ঢাকার ভেতর এবং বাইরে ১০০ ৳
অর্ডার করতে কমেন্ট করুন, ইনবক্স করুন অথবা কল করুন এই নম্বরে—০১৬১১১৫২৫২১ / ০১৯১১১৫২৫২১
১)মুমিনের বিনোদন
মানুষ মাত্রই বিনোদনপ্রিয়। স্বভাবে তার মিশে আছে আনন্দ ও উচ্ছ্বল-প্রবণতা। সে হাসতে চায়, খেলতে চায়, নানা ব্যস্ততার মাঝেও সময় পেলে একটু বিনোদন করতে চায়। বিনোদনেরও রয়েছে নানা প্রকার, যথা- আত্মিক বা দৈহিক, ব্যক্তিগত বা দলগত, মেধাভিত্তিক বা শক্তিভিত্তিক। সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে খেলা ও বিনোদনের বিভিন্ন পদ্ধতি। প্রযুক্তির কল্যাণে আবিস্কার হচ্ছে প্রতিদিন আনন্দ-উচ্ছ্বাসের নিত্যনতুন রীতিনীতি। বিনোদন ও আনন্দের এতসব উপকরণ দেখলে স্বভাবতই একজন মানুষের মন উতলা হয়ে ওঠে। ক্ষণিকের তরে আনন্দ-উল্লাসে নিজেকে ভাসিয়ে দিতে ইচ্ছে করে। বিশেষত যখন সমাজের চারপাশে শিশু থেকে বৃদ্ধ অধিকাংশ লোকই এসব খেলা-বিনোদনে মত্ত, তখন স্বভাবতই রক্ত-মাংসের একজন মানুষ হিসেব নিজেরও সেসব বিনোদনে অংশগ্রহণ করতে মন চায়। কিন্তু একজন মুমিন হিসেবে কি এ অবাধ বিনোদন আমার জন্য অনুমোদিত? একজন মুসলিম হিসেবে কি পাশ্চাত্যের আবিস্কৃত এসব খেলার উপকরণ আমার জন্য বৈধ? আল্লাহর একজন নগণ্য দাস হিসেবে এটা আমাকে ভাবতেই হবে। বস্তুত এখানেই একজন মুমিন ও কাফিরের মাঝে পার্থক্য নির্ণয় হয়ে যায়। কাফির দুনিয়ার কোনো কাজে কখনো কারও পরোয়া করে না। কিন্তু একজন মুমিনের প্রতিটি ক্ষেত্রেই লক্ষ করতে হয় যে, এ কাজে মহান রবের অনুমোদন আছে কিনা। আফসোস যে, আমাদের সমাজের নামসর্বস্ব অধিকাংশ মুসলিম এ ব্যাপারে শরয়ি অবস্থান না জেনেই জড়িয়ে পড়ছে পশ্চিমাদের পাতানো ফাঁদে, যা কখনো একজন প্রকৃত মুমিনের কাজ হতে পারে না। সে তো প্রথমে জেনে নেয়, এ ব্যাপারে শরয়ি দিকনির্দেশনা কী। অনুমোদন থাকলে তবেই সে অগ্রসর হয়; নয়তো সে থেমে যায়। একজন মুমিনের জীবনে বিনোদন কীভাবে হতে পারে, প্রচলিত বিভিন্ন খেলা-বিনোদনের ক্ষেত্রে মূলনীতি কিংবা এ ব্যাপারে তার সীমারেখাই বা কতটুকু—ইত্যাকার বিষয়ে কি আমার জানার ভাণ্ডার সমৃদ্ধ? উত্তর যদি না হয়ে থাকে, তাহলে চলুন দেখি, ইসলাম এ ব্যাপারে কী বলে…! কী বলে সে একজন মুমিনের বিনোদনের সীমারেখার ব্যাপারে…!
বই : মুমিনের বিনোদন
লেখক : শাইখ মুহাম্মদ সালিহ আল-মুনাজ্জিদ
অনুবাদক : আবদুন নুর সিরাজি
সম্পাদনা : মুফতি তারেকুজ্জামান
পৃষ্ঠা : ১৪৪
মুদ্রিত মূল্য:২১০৳
বিক্রয় মূল্য:১৫৭৳
ধরন : হার্ড বাধাই
ডেলিভারি চার্জ:৬০৳ ঢাকার ভেতর এবং বাইরে ১০০৳
বইটি কিনতে ইনবক্স করুন অথবা কল করুন ০১৬১১১৫২৫২১ / ০১৯১১১৫২৫২১
২)আমাদের সোনালি অতীত
মানুষ গল্পপ্রিয়। এটা মানুষের স্বভাবগত বৈশিষ্ট্য। গল্প পড়তে ভালো লাগে, শুনতেও ভালো লাগে। বয়ান বক্তৃতায় যদি থাকে গল্পের রস, তাহলে তো কথাই নেই! সকল শ্রোতা নড়ে-চড়ে বসে। একেবারে মজে যায়। হারিয়ে যায় গল্পের মাঝে। এ কথা অনস্বীকার্য যে, বিষয়বস্তু শ্রোতাদের অন্তরে গভীরভাবে গেঁথে দেওয়া ও আকর্ষণ সৃষ্টির ব্যাপারে গল্পের ছলে নসিহত ও কাহিনির অবতারণা বড়ই ক্রিয়াশীল। আর গল্পগুলো যদি হয় সাহাবাজীবনের, তাহালে তো সোনায় সোহাগা। কেননা, রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের ইনতেকালের পর সারা পৃথিবীতে যারা ইসলামের আদর্শ ও আলো ছড়িয়ে দিয়েছেন, যাদের রক্ত, ঘাম, শ্রম ও বিপুল ত্যাগ-তিতিক্ষার বিনিময়ে ইসলাম সারা পৃথিবীতে ছড়িয়ে পড়েছিল, তারাই হলেন রাসুলের প্রিয় সাহাবি রাদিয়াল্লাহু আনহুম। রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের পর তাদের জীবনে ও কর্মে ইসলামের প্রায়োগিক রূপ মূর্ত হয়ে উঠেছিল। তাই ইসলামকে বুঝতে ও জানতে হলে সাহাবিগণের জীবনাদর্শ, তাদের জীবনের গল্প ও নসিহতের কোনো বিকল্প নেই। এ গ্রন্থে আরবের পাঠকনন্দিত লেখক ড. মুহাম্মদ ইবনে আবদুর রহমান আরিফি গল্পের ভাষায় সাহাবি ও তাবেয়ি-জীবনের নানান চিত্র তুলে ধরেছেন। ছোট ছোট গল্পঘটনার মাধ্যমে লেখক তুলে ধরেছেন সোনালি মানুষের দিনযাপন। সাহাবিদের জীবনের চিত্তাকর্ষক হীরাখণ্ডগুলো ছড়িয়ে দিয়েছেন এই বইয়ের পাতায় পাতায়। জীবনের পরতে পরতে বিশুদ্ধতার ছোঁয়া পৌঁছে দেবার এবং জীবন বদলে দেওয়ার গল্পভাষ্যই হলো-আমাদের সোনালি অতীত।
বই : আমাদের সোনালি অতীত
লেখক : ড. মুহাম্মদ ইবনে আবদুর রহমান আরিফি
অনুবাদক : আবদুন নুর সিরাজি
সম্পাদক : সালমান মোহাম্মদ
প্রচ্ছদ : আবুল ফাতাহ মুন্না
নামলিপি : মুহাম্মদ আবদুল্লাহ খান
পৃষ্ঠা : ১৬০
মুদ্রিত মূল্য : ২২০৳ (২৫%ছাড়ে)
বিক্রয় মূল্য: ১৬৫৳
ডেলিভারি চার্জ: ৬০৳ ঢাকার ভেতর এবং বাইরে ১০০৳
বইটি কিনতে ইনবক্স করুন অথবা কল করুন ০১৬১১১৫২৫২১ / ০১৯১১১৫২৫২১
৩)সালাফদের চোখে দুনিয়া
এই দুনিয়া মরিচীকার। দু-দিনের। দুনিয়া এক রঙিন স্বপ্নের নাম। ক্ষণস্থায়ী জীবনের নাম। দু-দিনের দুনিয়া নিয়ে মানুষ আকাশ ছোঁয়া স্বপ্ন দেখে। জীবনের স্বপ্ন পূরণে ছুটে চলে প্রান্তর থেকে প্রান্তর। তবুও স্বপ্ন পূরণ হয় না। ক্রমেই দুনিয়া নিয়ে হতাশা বাড়তে থাকে। কারণ দুনিয়া কখনো মানুষের সব স্বপ্ন পূরণ করে না। একদিন জীবনের সুতোয় টান পড়ে, জীবন বাতি নিভে যাওয়ার উপক্রম হয়, ওপারে পাড়ি জমানোর সময় চলে আসে। মৃত্যুর বিছানাতে এই ধূসর দুনিয়া নিয়ে আফসোস হয়। কিন্তু! সেদিনের শত আফসোস কোনো কাজে আসে না। দুনিয়া হলো পরজনমের পাথেয় অর্জনের একমাত্র স্থান। এখান থেকেই পরকালের পাথেয় জোগাতে হবে। দুনিয়ার যশ-খ্যাতি, সাফল্য-ব্যর্থতার হিসাব কষতেই কেটে যায় আমাদের দিন-রাত্রিগুলো। দিকভোলা হয়ে এই দুনিয়াতে আমরা হেঁটে চলছি। দুনিয়ার রূপ-রস, গন্ধে আমরা ভুলে যাই পরজনমের পাথেয় সংগ্রহ করার কথা। ধূসর দুনিয়ার মোহের হাতছানিতে আমরা ভুলে যাই রবকে। আখিরাতকে। দুনিয়া কী? দুনিয়ার সাথে আমাদের সম্পর্ক কেমন হওয়া উচিত? এখানে মানুষ কেন আসে? আবার কেনই-বা ক’দিন পরে চলে যায়? আমাদের রব, নবিজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম, সাহাবা রাদিয়াল্লাহু আনহুম এবং সালাফগণ দুনিয়াকে কোন চোখে দেখতেন। তারা দুনিয়ার মোহ থেকে বেঁচে থেকে কীভাবে যুহুদ অবলম্বন করতেন এই বিষয়টি নিয়েই তৃতীয় হিজরি শতকের মহান একজন প্রসিদ্ধ সালাফ ইমাম ইবনু আবিদ দুনিয়া রহিমাহুল্লাহু রচনা করেছেন কিতাবুয যুহুদ নামক একটি পুস্তিকা। তারই অনূদিত রূপ—সালাফদের চোখে দুনিয়া।
বই : সালাফদের চোখে দুনিয়া
লেখক : ইমাম ইবনু আবিদ দুনিয়া রহিমাহুল্লাহু
ভাষান্তর : সাইফুল্লাহ আল মাহমুদ
সম্পাদনা : উস্তাদ আকরাম হোসাইন
পৃষ্ঠা : ২৭২
মুদ্রিত মূল্য : ৩৭৫
বিক্রয় মূল্য : ২৮১৳(২৫%ছাড়ে)
বইয়ের ধরণ : হার্ডকভার
ডেলিভারি চার্জ: ৬০৳ ঢাকার ভেতর এবং বাইরে ১০০৳
বইটি কিনতে ইনবক্স করুন অথবা কল করুন ০১৬১১১৫২৫২১ / ০১৯১১১৫২৫২১

Reviews

There are no reviews yet.

Be the first to review “দুনিয়ার মোহভঙ্গ প্যাকেজ।”

Your email address will not be published. Required fields are marked *